Wednesday, October 29, 2008

বসন্ত যেভাবে ঋতুরাজ হলো-

শরতের আকাশ নিয়ে কোন দ্বিমত নেই। বছরের সবচাইতে সুন্দর আকাশ দেখা যায় ওই সময়টায়। ঘাসের ওপর সটান শুয়ে সাদা সাদা মেঘের মধ্যে পালতোলা নৌকা, হাতি, প্রিয়জনের মুখ সবই বানানো যায়। কিন্তু যখন রোদ ওঠে, পিঠে গিয়ে লাগে!

যখন 'ঋতুরাজ' নির্বাচনের ভুটাভুটি হয়, তখন ভালোলাগার দিক থেকে শরৎ বেশ কিছু ভোট পেয়েছিলোও বটে। কিন্তু ঠিক তার পরের ব্লকেই হেমন্ত নামের আগুন একটি ঋতু বাস করে বলে ঋতুরাজ হিসেবে তার কপালের শিঁকে ছিঁড়েনি। আর বড়ই আকর্ষণীয়, মনকাড়া রূপসৌন্দর্য্য নিয়েও হেমন্ত ভুটে জিততে পারেনি ঠিক তার পাশেই অমন দিল ধাকধাককরা মাধুরীর মতো মিষ্টি 'শরৎ' ছিলো বলে!

গ্রীষ্ম আর বর্ষা ভুটের রাজনীতিতে খুবেকটা সুবিধে করতে পারেনি। শোনা যায় তারা নির্বাচন কমিশনের আদেশকে পেঁয়াজ-কাঁচামরিচসহ মুড়ি খাওয়ার আহ্বান জানিয়ে, বৃদ্ধাঙুল দেখিয়ে ইলেকশনে নয়ছয়রঙা পোস্টার ছাপায়। ঝড়-তুফান-বৃষ্টি আর কাঁদার দেয়াল লিখনে ভরে তোলে যত্রতত্র। আর্মি ইন্টেলিজেন্স তো দাবী করে ভুটের আগের রাতে নাকি 'গ্রীষ্ম' রীতিমতো নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে জনগণকে 'উপঢৌকণ'ও প্রদান করে। এইযে এতো এতো ফল পাই আমরা গ্রীষ্মকালে, এগুলো তো সেই উপঢৌকণেরই বাইপ্রোডাক্ট!

শীত বেচারা একটু ম্যাদা মার্কা ছিলো ছোটকাল থেকেই। অনেকটা আমার মতো আলসে। চাদর মুড়ি দিয়ে খালি ঘুমায় ব্যাটা। অনেক চমকদার, রকমফেরী শাক-সব্জি আর সুস্বাদু খেজুরের রসের প্রত্যক্ষ সাপোর্ট থাকা সত্বেও কেবলমাত্র আলসেমীর কারণেই কিনা ইলেকশানে পিছিয়ে গেলো ব্যাটা! শালা একটা ফাজিল বটে!!

শেষমেশ টেক্কাটা মারলো সুযোগসন্ধানী 'বসন্ত'। গ্রীষ্মের নামে দুদকে দুর্নীতির মকদ্দমা ঠুঁকে তাকে হঁটিয়ে দেয় ইলেকশানের রিলেশান থেকে। গ্রাসরুটের প্রবল সমর্থন থাকা শীতের আলসেমীর বিরুদ্ধেও সে সোচ্চার, কখনো শীতল আর কখনো অগ্নিময় কথাবার্তায় কাঁপিয়ে তোলে বাংলার পথঘাটপ্রান্তর। নিজের ইলেকশনের প্রচারণার জন্য ইমপোর্ট করে উপমহাদেশের নামীদামী সঙ্গীত শিল্পী 'কুকিল'কে। কুকিল তার কণ্ঠের ইন্দ্রজালে জড়িয়ে নেয় গোটা সিলেকশনবোর্ড। সবাই সুন্দরের পূজারী। জনগণও তাদের বয়ষ্ক বউদের ঘরে রেখে চ্যাঙড়া কুকিলের জলসায় হাজির হয়। সুযোগ বুঝে বসন্ত ঘোষনা দিয়ে বসে, "ভাইসব, আপনারা আমাকে ঋতুরাজ হিসেবে নির্বাচিত করুন। আমি নিজের তহবিল থেকে খরচ করে আপনাদের ঘরে বসে কুকিলের সুকণ্ঠি অমৃত সেবনের ব্যবস্থা করে দিবো!" পটেটো সিনড্রোমের জনগণ আর কী করে! দিলো নিজের ভুটখানা বসন্তকেই।

সেই থেকেই না বসন্তকে ঋতুরাজ মানার নিয়ম!

3 comments:

প্রকৃতিপ্রেমিক said...

নতুন লেখা আসছেনা কেন এখানে?

Banglanews said...

দারুন দারুন লেগেছে।

Farid Ahammad said...

ভালো ।
Tender business bangladesh dhaka bid
auction purchase sales bangla.